বিষয়বস্তুর দিকে


আবারও শুরু হচ্ছে ‘দ্য বব্স’ প্রতিযোগিতা


theBOBS_starting_soon

ডয়চে ভেলের ‘দ্য বব্স –  বেস্ট অফ অনলাইন অ্যাক্টিভিজম’ এর দশম পর্ব শুরু হবে আগামী পাঁচ ফেব্রুয়ারি থেকে৷ সেদিন থেকে চৌদ্দটি ভাষায় মনোনয়ন জমা দিতে পারবেন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা৷ আমরা এই প্রতিযোগিতায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের ব্যতিক্রমী সব অনলাইন প্রজেক্ট এবং অ্যাক্টিভিস্টদের অংশগ্রহণ প্রত্যাশা করছি৷

পাঁচ ফেব্রুয়ারি থেকে পরবর্তী চার সপ্তাহ আমরা ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে বিভিন্ন মনোনয়ন গ্রহণ করব এবং সেগুলো আমাদের জুরিমণ্ডলীর কাছে পাঠিয়ে দেবো৷ এরপর চৌদ্দটি ভাষায় চূড়ান্ত মনোনয়ন নির্ধারণ করা হবে৷

বরাবরের মতো এবারো আমাদের জুরিমণ্ডলীতে খানিকটা পরিবর্তন এসেছে৷ নতুন জুরি হিসেবে তুরস্ক থেকে এরকান সাকা, গুয়াতেমালা থেকে রেনাটা আভিলা, ব্রাজিল থেকে আলেক্সান্দ্রে ইউসেফ, ক্যামেরুন থেকে ফ্লোরিয়ান গিমবিস, ইউক্রেন থেকে ভিক্টোরিয়া সিউমার এবং ভারত থেকে রোহিনী লক্ষণে যোগ দিচ্ছেন৷ বাংলা ভাষার জুরি হিসেবে গত দুবারের মতো এবারও থাকছেন শহিদুল আলম৷ চৌদ্দটি ভাষার জুরিমণ্ডলীর সদস্যরা প্রত্যেকে স্ব স্ব ভাষার মনোনয়ন চূড়ান্ত করবেন এবং বার্লিনে এক বৈঠকে জুরিমণ্ডলীর অন্যান্য সদস্যদের সামনে তা উপস্থাপন করেন৷

প্রতিবছর আমরা সাধারণত জুরিমণ্ডলীর অর্ধেক সদস্য পরিবর্তন করি৷ মূলত নতুনদের সুযোগ দিতে এবং তাঁদের কাছ থেকে নিত্য নতুন ধারণা পেতে এটা করা হয়৷ তবে দীর্ঘদিন আমাদের সঙ্গে থাকা বিচারকদের সঙ্গ ত্যাগ করাটা আবেগের কারণে সহজ হয় না৷

এই ওয়েবসাইটের ‘ফিরে দেখা’ বিভাগে আমরা ২০০৪ সাল থেকে বিভিন্ন সময় আমাদের সঙ্গ দেয়া বিচারকদের একটি তালিকা প্রকাশ করেছি৷ সেখানে তাঁদের টুইটার প্রোফাইল দেয়া আছে৷ তাই আপনারা চাইলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করতে পারেন৷ সত্যিকার অর্থেই চমৎকার মানুষ তাঁরা৷ তাঁদের সঙ্গে আমাদেরও নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে৷

ফিরে দেখা পাতায় ২০০৪ সাল থেকে এখন অবধি দ্য বব্স অ্যাওয়ার্ড জয়ীদের তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে৷ তবে বিজয়ীদের অনেক লিংক এখন কাজ করছে না৷ এটা এজন্য যে, অনেক বিজয়ী নিজের ইচ্ছায় বা বাধ্য হয়ে তাঁদের ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছেন৷ বিজয়ীদের কেউ কেউ আবার বাক স্বাধীনতার অধিকার চর্চা করতে গিয়ে কারাভোগ করছেন৷ কিছু ক্ষেত্রে সরকারি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ ওয়েবসাইট লিংক বন্ধ করে দিয়েছে৷

আমরা নিয়মিত ‘দ্য বব্স’ বিজয়ীদের খোঁজখবর রাখার চেষ্টা করি এবং হতাশার কথা হচ্ছে, মাঝেমধ্যেই তাঁদের কারো কারো উপর নিপীড়নের খবরও আমরা পাই৷ আমাদের এই প্রতিযোগিতার অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে গণতন্ত্র এবং বাক স্বাধীনতার অধিকারের দাবিতে সংগ্রামরতদের পাশে দাঁড়ানো৷ আর পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে আমরা গোটা বিশ্বকে তাঁদের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে অবহিত করি, যাতে তাদের দেশের নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ ও গোয়েন্দা সংস্থা বুঝতে পারে, তাঁরা একা নন৷

উল্লেখ্য দ্য বব্স প্রতিযোগিতায় বাংলা ভাষা যুক্ত হয়েছে ২০০৯ সালে৷ অন্য কয়েকটি ভাষার তুলনায় আমরা নতুন হলেও সাফল্য আমাদের কম নয়৷ এখন অবধি তিনজন জুরি অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী পেয়েছি আমরা৷ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ক্যাটাগরিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ভোটে বাংলা ‘ইউজার প্রাইজ’ বিজয়ীর সংখ্যাও নেহাত কম নয়৷

আগামীতে আমরা বিজয়ের এই ধারা অব্যাহত রাখতে আপনার সহযোগিতা চাই৷ তাই প্রস্তুতি শুরু করুন এখন থেকেই৷ আর পাঁচ ফেব্রুয়ারি থেকে এই ওয়েবসাইটে জমা দিন আপনার পছন্দের প্রার্থীর ওয়েব ঠিকানা৷