বিষয়বস্তুর দিকে


শহিদুল আলম

বাংলাদেশি ব্লগার, আলোকচিত্রি, লেখক, কিউরেটর ও অধিকারকর্মী শহিদুল আলম ফটোগ্রাফিকে পেশা হিসাবে বেছে নেয়ার আগে লন্ডনে রসায়নশাস্ত্রে পিএইচডি করেন৷ ১৯৮৪ সালে দেশে ফিরে পুরোদমে কাজ শুরু করার পর, স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলনের ছবি ধারণ করেন তিনি নিজ ক্যামেরায়৷ বাংলাদেশ ফটোগ্রাফিক সোসাইটির সাবেক সভাপতি শহিদুল আলমের তোলা ছবি নিউ ইয়র্কের মিউজিয়াম অফ মর্ডান আর্ট (এমওএমএ), প্যারিসের সেন্টার জর্জেস পম্পিডু এবং লন্ডনের টেইট মডার্নের মতো গ্যালারিতে প্রদর্শিত হয়েছে৷ হার্ভার্ড, স্ট্যানফোর্ড, ইউসিএলএ, অক্সফোর্ড ও কেমব্রিজের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি আলোকচিত্র বিষয়ে বক্তৃতা করেছেন৷ যুক্তরাজ্যের রয়্যাল ফটোগ্রাফিক সোসাইটির এই ‘অনারারি ফেলো’ ওয়ার্ল্ড প্রেস ফটো প্রতিযোগিতায় ইন্টারন্যাশনাল জুরি হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছেন৷ শহিদুল আলমের সর্বশেষ বই নিয়ে লাইফ ম্যাগাজিনের সাবেক পিকচার এডিটর জর মরিসের মন্তব্য, ‘‘একজন আলোকচিত্রীর লেখা এ যাবৎকালের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বই এটি৷’’

সাইট: শহিদুলআলম.কম
টুইটার: @shahidul


তারেক আমর

তারেক আমর মিশরের ব্লগার৷ ব্লগ লিখছেন ২০০৫ সাল থেকে৷ ২০০৭ সালে তিনি গ্লোবাল ভয়েসেস অনলাইনে যোগদান করেন, এবং সেই থেকে মিশর এবং প্রয়োজনে অন্যান্য আরব দেশের ঘটনাবলীর প্রতি ব্লগার ও সিটিজেন সাংবাদিকদের কি প্রতিক্রিয়া, তারেক তা পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ করছেন৷ তারেক বহু সোশ্যাল মিডিয়া সম্মেলন ও ওয়ার্কশপে অংশগ্রহণ করেছেন৷ টিউনিশিয়ায় তৃতীয় আরব ব্লগারদের সম্মেলনেও তিনি উপস্থিত ছিলেন৷ এছাড়া তিনি ফোটোগ্রাফি, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক এবং সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টে আগ্রহী৷

ব্লগ: কোলমেটিন
টুইটার: @gr33ndata


স্টিভ ভোসলু

স্টিভ ভোসলু দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষ৷ সেখানেই তিনি ১৯৯৩ সালে প্রথম অনলাইন দুনিয়ায় প্রবেশ করেন এবং ইন্টারনেটের ভক্ত হয়ে পড়েন৷ প্রথম দিকে তিনি ওয়েব ডেভেলপার হিসেবে কাজ করেছেন, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবস্থা এবং তার ব্যবহারের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেছেন৷ ২০০৩ সাল থেকে স্টিভ আর্থ-সামাজিক বিকাশধারায় আইসিটির ব্যবহার সম্পর্কে আগ্রহী৷ ই-গভর্নমেন্ট, যুব মিডিয়া, ডিজিটাল মিডিয়া এবং মোবাইল লার্নিং’এর ক্ষেত্রে কাজ করেছেন৷ শাটলওয়ার্থ ফাউন্ডেশনের ‘‘টোয়েন্টিফার্স্ট সেঞ্চুরি লার্নিং’’ প্রকল্পের সহযোগী ছিলেন, এমফোরলিট বা মোবাইল ফর লিটারেসি প্রকল্পের প্রতিষ্ঠাতা তিনি৷ এমফোরলিট’এর উদ্দেশ্য ছিল, মুঠোফোনে প্রকাশিত গল্পের মাধ্যমে কিভাবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও কেনিয়ায় ছোটদের পড়া এবং লেখা শেখানো যায়, সেটা দেখানো৷ ২০০৭ সালে স্টিভ একটি বৃত্তি নিয়ে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে যান এবং যুব মিডিয়া ও ডিজিটাল মিডিয়া নিয়ে গবেষণা করেন৷ বর্তমানে তিনি মোবাইল লার্নিং’এর বিশেষজ্ঞ হিসেবে প্যারিসে ইউনেস্কো’র হয়ে কাজ করছেন৷

সাইট: স্টিভভোসলু.কম


রোজানা হেরমান

রোজানা হেরমান লেখিকা, চিত্রনাট্য রচয়িতা, টেলিভিশনের সঞ্চালিকা এবং ব্রাজিলের সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্লগারদের মধ্যে একজন৷ ২০০৮ সালে তিনি ‘সেরা পোর্তুগীজ ওয়েবলগ’ বিভাগে বব্স পুরস্কার পান৷ পারমাণবিক পদার্থবিদ্যা এবং সাংবাদিকতা নিয়ে পড়াশুনার পর এসবিটি টেলিভিশন, রেডে গ্লোবো এবং ব্যান্ডের হয়ে ব্রাজিলে কাজ করেছেন৷ বর্তমানে রোজানা ব্রাজিলের বৃহত্তম ইন্টারনেট পোর্টালগুলোর মধ্যে আর-সেভেন নামক একটি পোর্টালের পণ্য ও সৃজনী বিভাগের পরিচালিকা৷ এছাড়া তিনি সাও পাওলো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা৷

ব্লগ: কেরিদো লাইটর
টুইটার: @rosana


প্যাট্রিসিয়া কামারাটা

১৯৯৭ সাল থেকে প্যাট্রিসিয়া ‘ইন্টারনেট আসক্ত’, নিজেই বলেন৷ ‘দাসনুফ’ ছদ্মনামে বিগত সাত বছরের বেশি ধরে লিখে চলেছেন নিজের ব্যক্তিগত ওয়েবলগ, যেখানে ধরা আছে তার দৈনন্দিন জীবনের অভিজ্ঞতা৷ তাতে ক্ল্যাসিক নারী ও মহিলা সংক্রান্ত বিষয়, যেমন নারীমুক্তি, কর্মক্ষেত্র ও পরিবারের ভারসাম্য, সন্তান লালনপালন ইত্যাদি ছাড়াও সংস্কৃতি তথা রাজনীতির বিভিন্ন বিষয়ও এসে পড়েছে৷ প্যাট্রিসিয়া কামারাটা মনোবিজ্ঞান এবং দর্শনের ছাত্রী, এবং আজ তথ্যপ্রযুক্তি প্রকল্পের প্রধান৷ সপরিবারে বার্লিনে বাস করেন তিনি, কেননা বার্লিন নাকি ইন্টারনেটের বৈচিত্র্যেরই একটা ইটকাঠের সংস্করণ৷

ব্লগ: দাসনুফ.ডিই

টুইটার: @dasnuf


মারিলিন গনজালো

আর্জেন্টিনার কর্ডোবা-বাসী মারিলিন সাংবাদিক এবং সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষজ্ঞ৷ প্রথাগত মিডিয়ায় কয়েক বছরের পেশাদারি অভিজ্ঞতার পর তিনি ইন্টারনেটভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের দিকে নজর দেন৷ ২০পালাব্রাস (২০টি শব্দ) এবং টুইটডে.কম ইত্যাদি প্রকল্পের মাধ্যমে তিনি সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষেত্রে যোগ্যতা অর্জন করেন৷ টুইটডে.কম ছিল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, সেভি’য়া, লিসবন, লন্ডন, টোকিও অথবা বুয়েনস এয়ারেস’এর মতো শহরে ছড়িয়ে থাকা টুইটার-ব্যবহারকারীদের মধ্যে প্রথম সাক্ষাৎ৷ ২০০৯ সাল যাবৎ মারিলিন হাইপারটেক্সচুয়াল নামধারী ব্লগ নেটওয়ার্কটির কনটেন্ট ম্যানেজার৷ এই নেটওয়ার্কটি ১৭টি ব্লগের একটি সম্মিলিত প্রয়াস এবং স্প্যানিস ভাষার ব্লগ জগতে সর্বাধিক পঠিত ব্লগগুলির মধ্যে পড়ে৷

ব্লগ: হাইপারটেক্সচুয়াল.কম
টুইটার: @marilink


লুসি মরিও

লুসি মরিও প্যারিসের রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স সংগঠনের ইন্টারনেট ফ্রিডম ডেস্ক’এর দায়িত্বে আছেন৷ বেসরকারি এই সংস্থাটি সারা বিশ্বে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার জন্য সক্রিয় এবং কারারুদ্ধ সাংবাদিক ও ব্লগারদের সাহায্য করে থাকে৷ ২০০০ সাল পর্যন্ত সংগঠনটির বহু জাতীয় শাখা সৃষ্টি ও সমন্বয়ের কাজে সম্পৃক্ত ছিলেন মরিও৷ বিগত পাঁচ বছর ধরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স’এর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন৷

সাইট: রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স


আইজ্যাক মাও

আইজ্যাক মাও চীনের প্রখ্যাততম ব্লগারদের মধ্যে পড়েন এবং চীনের ব্লগারদের ২০০৫ সালে সাংহাইতে অনুষ্ঠিত প্রথম সম্মেলনের উদ্যোক্তাদের মধ্যে ছিলেন তিনি৷ নিজে সফটওয়্যার ডেভেলপার, সামাজিক শিক্ষা বিষয়ক গবেষক, সোশ্যাল ব্রেইন ফাউন্ডেশন’এর পরিচালক৷ গ্লোবাল ভয়েসেস অনলাইন এবং একাধিক অন্যান্য ওয়েব ২.০ বিজনেসের উপদেষ্টা৷ বিভিন্ন উপলক্ষে তিনি চীনে সেন্সর নীতির বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছেন, এবং গুগল যে চীন সরকারের ফিল্টার প্রথা আংশিকভাবে মেনে নিয়েছে, আইজ্যাক মাও তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে গুগল’এর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের কাছে খোলা চিঠিও লিখেছিলেন৷

ব্লগ: আইজ্যাক মাও’র ব্লগ


এন্ডা নাসুটিয়ন

ইন্দোনেশীয় ব্লগারদের জনক হিসেবে পরিচিত এন্ডা নাসুটিয়ন হলেন গ্লোবাল ভয়েসেস অনলাইনের প্রথম ইন্দোনেশীয় কর্মী৷ ২০০৭ সালে ইন্দোনেশিয়ার প্রথম ব্লগার সম্মেলনে সভাপতি ছিলেন এন্ডা নাসুটিয়ন, এবং আজও তিনি ‘‘পেস্টা ব্লগার’’-এর স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য৷ ২০০১ সাল যাবৎ ব্লগ লিখছেন এবং নিজের দশ বছরের পেশাদারি অভিজ্ঞতা, সৃজনশীলতা ও প্রযুক্তিগত জানকারি কাজে লাগাচ্ছেন নিজের সৃষ্ট পলিটিকানা.কম নামধারী রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্মটিকে বাড়ানোর জন্য৷ এছাড়া তিনি বিভিন্ন কোম্পানি ও সংগঠনকে ইন্টারনেটভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কার্যকরিভাবে ব্যবহার করার ব্যাপারে সাহায্য ও পরামর্শ দিয়ে থাকেন৷
ব্লগ: এন্ডা নাসুটিয়ন’স ওয়েবলগ

টুইটার: @enda


ক্লেয়ার উলরিশ

পত্র-পত্রিকা ও টেলিভিশন সাংবাদিকতায় প্রাArash Abadpourয় ২০ বছরের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করার পর ২০০৪ সালে ক্লেয়ার উলরিশ নাগরিক সাংবাদিকতার দুনিয়া সম্পর্কে সচেতন হন৷ সাংবাদিক এবং ভাষাতত্ত্ববিদ হিসেবে ক্লেয়ার উলরিশ অনুবাদকার্যের বিভিন্ন টুলস, ইন্টারনেটে মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং উন্নয়নশীল দেশগুলিতে ইন্টারনেট সংক্রান্ত জ্ঞানের প্রসারেও আগ্রহী৷

সাইট: গ্লোবাল ভয়েসেস অনলাইনে ক্লেয়ার উলরিশ
টুইটার: @ClaireInParis


আরাশ আবাদপুর

Arash Abadpourইরানি ব্লগার আরাশ আবাদপুর’এর ছদ্মনাম হল কামানগির, অর্থাৎ তীরন্দাজ৷ বর্তমানে বসবাস করছেন ক্যানাডার টরোন্টোয়৷ ২০০৪ সাল থেকে ব্লগ লিখছেন, প্রথমে ইংরিজিতে, বর্তমানে প্রধানত ফার্সিতে৷ ফার্সি ব্লগের জগৎ নিয়ে লিখে থাকেন, সেই অনুপাতে আন্তর্জাতিক মিডিয়ার কাছ থেকেও বিষয়টি নিয়ে লেখার এবং বলার জন্য নিয়মিত অনুরোধ আসে৷ বিভিন্ন পরিসংখ্যান অনুযায়ী আবাদপুরের ব্লগ ফার্সি ভাষায় সর্বাধিক পঠিত ২০টি ব্লগের মধ্যে পড়ে৷ অন্যদিকে আবাদপুর’এর ইলেকট্রিকাল এবং কম্পিউটার প্রযুক্তিতে ডক্টরেট আছে৷

ব্লগ: কামানগির.নেট
টুইটার: @kamangir


আলেক্সান্ডার প্লুশেভ

সাংবাদিক, ইন্টারনেট বিশেষজ্ঞ এবং রুশ ভাষার ইন্টারনেটে অন্যতম ব্লগার প্লুশেভ ‘‘রশিয়া ২৪’’ তথ্য চ্যানেলের ‘‘ভেস্টি.নেট’’ টেলিভিশন ম্যাগাজিনটির লেখক ছিলেন৷ শীর্ষস্থানীয় সংবাদ পোর্টাল ‘‘লেন্টা.রু’’-র প্রধান সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছেন৷ ‘‘আলেক্স স্প্রিঙ্গার রাশিয়া’’ এবং ‘‘রাশিয়ান নিউজউইক’’-এর সহকারী প্রধান সম্পাদক ছিলেন৷ বর্তমানে সরকার-সমালোচক এফএম রেডিও ‘‘একো মস্কভি’’-র একাধিক অনুষ্ঠান সঞ্চালন করে থাকেন এবং ‘‘রিয়া নোভোস্তি’’ সংবাদ সংস্থার জন্য ‘‘ইন্টারনেটের খবরাখবর’’ নামধারী একটি ভিডিও অনুষ্ঠান প্রযোজনা করে থাকেন৷

ব্লগ: প্লুশেভ.কম